ঢাকা ১০:৪৬ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ২৫ মে ২০২৪
সংবাদ শিরোনাম :

রংপুরকে হারিয়ে ফাইনালে কুমিল্লা

স্পোর্টস ডেস্ক :   রংপুর রাইডার্সকে ৮ উইকেটে হারিয়ে বিপিএলের ষষ্ঠ আসরের ফাইনালে উঠেছে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ানস। শের-ই-বাংলা স্টেডিয়ামে প্রথম কোয়ালিফায়ারে ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়নদের দেয়া ১৬৬ রানের লক্ষ্য ২ উইকেট হারিয়ে ৭ বল হাতে রেখেই টপকে যায় ২০১৫ আসরের চ্যাম্পিয়নরা।এভিন লুইস ৫৩ বলে ৭১ রানে অপরাজিত থাকেন। ১৫ বলে ৩৪ রানের ক্যামিং ইনিংস খেলে অপরাজিত থাকেন শামসুর রহমান শুভ।

হেরেও মাশরাফীর রংপুর আরেকটি সুযোগ পাচ্ছে ফাইনালের পথে লড়ার। বুধবার দ্বিতীয় কোয়ালিফায়ার ম্যাচে তাদের প্রতিপক্ষ ঢাকা ডায়নামাইটস। ওই ম্যাচে জয়ী দলের সঙ্গে ৮ ফেব্রুয়ারি ফাইনাল খেলবে ইমরুল-তামিমদের কুমিল্লা।

১৬৬ রানের মাঝারি সংগ্রহ তাড়ায় নেমে শুরুটা ধীরগতির হলেও সময়ের সঙ্গে ঘোরে কুমিল্লার রানের চাকা। বড় হতে থাকে জুটিও। এভিন লুইস ও এনামুল হক বিজয় দ্বিতীয় উইকেটে ৯০ রান যোগ করে তৈরি করে দেন জয়ের পথ।

শেষ ৫ ওভারে দরকার পড়ে ৪১ রান। জয়ের ভিত গড়ে দিয়ে শফিউল ইসলামের বলে বোল্ড হন এনামুল। ৩২ বলে দুটি চার ও দুটি ছয়ের সাহায্যে ৩৯ রান করেন এই উইকেটরক্ষক-ব্যাটসম্যান।

শেষ পর্যন্ত ৩১ বলে ৪ বাউন্ডারি আর ২ ছক্কায় ৪৪ রান করে মোহাম্মদ সাউফউদ্দিনের শিকার হন রুশো, ইনিংসের তখন মাত্র ৭ বল বাকি। তবে বেনি হাওয়েল তুলে নেন বিধ্বংসী এক হাফসেঞ্চুরি। ২৮ বলে ৩ চার আর ৫ ছক্কায় তিনি অপরাজিত থাকেন ৫৩ রানে।

Tag :
আপলোডকারীর তথ্য

প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিল থেকে চিকিৎসার চেক হস্তান্ত।

রংপুরকে হারিয়ে ফাইনালে কুমিল্লা

আপডেট টাইম : ০৪:০৪:২২ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ৫ ফেব্রুয়ারী ২০১৯

স্পোর্টস ডেস্ক :   রংপুর রাইডার্সকে ৮ উইকেটে হারিয়ে বিপিএলের ষষ্ঠ আসরের ফাইনালে উঠেছে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ানস। শের-ই-বাংলা স্টেডিয়ামে প্রথম কোয়ালিফায়ারে ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়নদের দেয়া ১৬৬ রানের লক্ষ্য ২ উইকেট হারিয়ে ৭ বল হাতে রেখেই টপকে যায় ২০১৫ আসরের চ্যাম্পিয়নরা।এভিন লুইস ৫৩ বলে ৭১ রানে অপরাজিত থাকেন। ১৫ বলে ৩৪ রানের ক্যামিং ইনিংস খেলে অপরাজিত থাকেন শামসুর রহমান শুভ।

হেরেও মাশরাফীর রংপুর আরেকটি সুযোগ পাচ্ছে ফাইনালের পথে লড়ার। বুধবার দ্বিতীয় কোয়ালিফায়ার ম্যাচে তাদের প্রতিপক্ষ ঢাকা ডায়নামাইটস। ওই ম্যাচে জয়ী দলের সঙ্গে ৮ ফেব্রুয়ারি ফাইনাল খেলবে ইমরুল-তামিমদের কুমিল্লা।

১৬৬ রানের মাঝারি সংগ্রহ তাড়ায় নেমে শুরুটা ধীরগতির হলেও সময়ের সঙ্গে ঘোরে কুমিল্লার রানের চাকা। বড় হতে থাকে জুটিও। এভিন লুইস ও এনামুল হক বিজয় দ্বিতীয় উইকেটে ৯০ রান যোগ করে তৈরি করে দেন জয়ের পথ।

শেষ ৫ ওভারে দরকার পড়ে ৪১ রান। জয়ের ভিত গড়ে দিয়ে শফিউল ইসলামের বলে বোল্ড হন এনামুল। ৩২ বলে দুটি চার ও দুটি ছয়ের সাহায্যে ৩৯ রান করেন এই উইকেটরক্ষক-ব্যাটসম্যান।

শেষ পর্যন্ত ৩১ বলে ৪ বাউন্ডারি আর ২ ছক্কায় ৪৪ রান করে মোহাম্মদ সাউফউদ্দিনের শিকার হন রুশো, ইনিংসের তখন মাত্র ৭ বল বাকি। তবে বেনি হাওয়েল তুলে নেন বিধ্বংসী এক হাফসেঞ্চুরি। ২৮ বলে ৩ চার আর ৫ ছক্কায় তিনি অপরাজিত থাকেন ৫৩ রানে।