ঢাকা ১০:৩৮ অপরাহ্ন, সোমবার, ২২ জুলাই ২০২৪
সংবাদ শিরোনাম :

বিমান ছিনতাইয়ের চেষ্টার ঘটনায় শাহজালালের ৬ নিরাপত্তাকর্মী প্রত্যাহার

আলোর জগত ডেস্ক :  বিমান ছিনতাই চেষ্টার ঘটনার তদন্তের স্বার্থে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের ছয়জন নিরাপত্তাকর্মীর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে কর্তৃপক্ষ। এর মধ্যে পাঁচজন কর্মীকে সাময়িক বরখাস্ত এবং একজনকে প্রত্যাহার করে নেওয়া হয়েছে। আজ সোমবার বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ এ তথ্য জানায়।

জানা গেছে, সিভিল এভিয়েশনের অভ্যন্তরীণ অনুসন্ধানে প্রাথমিক তদন্তে বিমানবন্দরের বিভিন্ন পয়েন্টে নিরাপত্তার দায়িত্ব থাকা কর্মীদের অবহেলার অভিযোগ আনা হয়েছে। এর প্রমাণও মিলেছে। তবে ময়ূরপঙ্খি ছিনতাই চেষ্টার পেছনের ঘটনার কারণ অবশ্য এখনো জানা যায়নি। কমান্ডো অভিযানে নিহত যুবক পলাশ আহমেদের লক্ষ্য কী ছিল, এ ব্যাপারে এখনো অন্ধকারে রয়েছে তদন্তসংশ্লিষ্টরা।

সাময়িক বরখাস্ত হওয়া কর্মীদের মধ্যে রয়েছেন- অভ্যন্তরীণ টার্মিনালের সশস্ত্র নিরাপত্তা প্রহরী মো. ইউনুস হাওলাদার, হেভি লাগেজ গেটে (উত্তর) স্ক্যানিংয়ের নিরাপত্তা সুপারভাইজার মো. লেহাজ উদ্দিন ভূঁইয়া, বিমানবন্দরের অভ্যন্তরীণ টার্মিনালের কেবিন ব্যাগেজ স্ক্যানিং গেটের অপারেটর আনসার সদস্য আলীম হোসেন, বডি সার্চার আনসার সদস্য মাহফুজুর রহমান ও হেভি লাগেজ গেট উত্তরের বডি সার্চার আনসার সদস্য সাদ্দাম হোসেন।

এছাড়া ঘটনার সময় কর্তব্যরত এয়ারপোর্ট সিকিউরিটি ফোর্সের (এভসেক) সদস্য পোস্ট সুপারভাইজার সার্জেন্ট সাযেদুল ইসলামকে তার বর্তমান কর্মস্থল থেকে প্রত্যাহার করে বাংলাদেশ বিমানবাহিনীতে সংযুক্ত করা হয়েছে।

এর আগে গত ২৪ ফেব্রুয়ারি বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের ‘ময়ূরপঙ্খি’ উড়োজাহাজ ‘ছিনতাই চেষ্টা’ কালে চট্টগ্রামের শাহ আমানত বিমানবন্দরে যৌথ বাহিনীর অভিযানে নিহত হন পলাশ আহমেদ ওরফে মাহাদী নামে এক যাত্রী। ওই উড়োজাহাজে থাকা ক্রুসহ ১৪৭ যাত্রীর মধ্যে সবাই নিরাপদে সেদিন বেরিয়ে আসেন।

Tag :
আপলোডকারীর তথ্য

জনপ্রিয় সংবাদ

প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিল থেকে চিকিৎসার চেক হস্তান্ত, সাবেক এম পি নুরুল আমিন রুহুল

বিমান ছিনতাইয়ের চেষ্টার ঘটনায় শাহজালালের ৬ নিরাপত্তাকর্মী প্রত্যাহার

আপডেট টাইম : ০৮:৩৪:০৯ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ৪ মার্চ ২০১৯

আলোর জগত ডেস্ক :  বিমান ছিনতাই চেষ্টার ঘটনার তদন্তের স্বার্থে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের ছয়জন নিরাপত্তাকর্মীর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে কর্তৃপক্ষ। এর মধ্যে পাঁচজন কর্মীকে সাময়িক বরখাস্ত এবং একজনকে প্রত্যাহার করে নেওয়া হয়েছে। আজ সোমবার বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ এ তথ্য জানায়।

জানা গেছে, সিভিল এভিয়েশনের অভ্যন্তরীণ অনুসন্ধানে প্রাথমিক তদন্তে বিমানবন্দরের বিভিন্ন পয়েন্টে নিরাপত্তার দায়িত্ব থাকা কর্মীদের অবহেলার অভিযোগ আনা হয়েছে। এর প্রমাণও মিলেছে। তবে ময়ূরপঙ্খি ছিনতাই চেষ্টার পেছনের ঘটনার কারণ অবশ্য এখনো জানা যায়নি। কমান্ডো অভিযানে নিহত যুবক পলাশ আহমেদের লক্ষ্য কী ছিল, এ ব্যাপারে এখনো অন্ধকারে রয়েছে তদন্তসংশ্লিষ্টরা।

সাময়িক বরখাস্ত হওয়া কর্মীদের মধ্যে রয়েছেন- অভ্যন্তরীণ টার্মিনালের সশস্ত্র নিরাপত্তা প্রহরী মো. ইউনুস হাওলাদার, হেভি লাগেজ গেটে (উত্তর) স্ক্যানিংয়ের নিরাপত্তা সুপারভাইজার মো. লেহাজ উদ্দিন ভূঁইয়া, বিমানবন্দরের অভ্যন্তরীণ টার্মিনালের কেবিন ব্যাগেজ স্ক্যানিং গেটের অপারেটর আনসার সদস্য আলীম হোসেন, বডি সার্চার আনসার সদস্য মাহফুজুর রহমান ও হেভি লাগেজ গেট উত্তরের বডি সার্চার আনসার সদস্য সাদ্দাম হোসেন।

এছাড়া ঘটনার সময় কর্তব্যরত এয়ারপোর্ট সিকিউরিটি ফোর্সের (এভসেক) সদস্য পোস্ট সুপারভাইজার সার্জেন্ট সাযেদুল ইসলামকে তার বর্তমান কর্মস্থল থেকে প্রত্যাহার করে বাংলাদেশ বিমানবাহিনীতে সংযুক্ত করা হয়েছে।

এর আগে গত ২৪ ফেব্রুয়ারি বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের ‘ময়ূরপঙ্খি’ উড়োজাহাজ ‘ছিনতাই চেষ্টা’ কালে চট্টগ্রামের শাহ আমানত বিমানবন্দরে যৌথ বাহিনীর অভিযানে নিহত হন পলাশ আহমেদ ওরফে মাহাদী নামে এক যাত্রী। ওই উড়োজাহাজে থাকা ক্রুসহ ১৪৭ যাত্রীর মধ্যে সবাই নিরাপদে সেদিন বেরিয়ে আসেন।