ঢাকা ১০:৪৫ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ২৫ মে ২০২৪
সংবাদ শিরোনাম :

চলে গেলেন ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী ফজলে রাব্বী

আলোর জগত ডেস্ক :   গাইবান্ধা-৩ (সাদুল্লাপুর-পলাশবাড়ী) আসনের ঐক্যফ্রন্ট মনোনীত জাতীয় পার্টির (জাফর) প্রার্থী সাবেক মন্ত্রী ড. টিআইএম ফজলে রাব্বি চৌধুরী (৮৪) বৃহস্পতিবার ভোর রাত পৌনে তিনটার দিকে ঢাকাস্থ ইউনাইটেড হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন (ইন্নালিল্লাহি—রাজিউন)। ফজলে রাব্বী চৌধুরী দীর্ঘদিন ধরে ফুসফুসে সংক্রমণ ও উচ্চ রক্তচাপসহ বিভিন্ন রোগে ভুগছিলেন।

সাদুল্যাপুর উপজেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি শফিউল ইসলাম স্বপন জানান, ফজলে রাব্বী চৌধুরী দীর্ঘদিন ধরে হার্টের সমস্যায় ভুগছিলেন। শারীরিকভাবে অসুস্থ থাকায় ভোটের মাঠে আসতে পারছিলেন না তিনি। হঠাৎ করে ঢাকার নিজ বাসায় বুকে ব্যথা অনুভব করলে তাকে ইউনাইটেড হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।

ফজলে রাব্বী চৌধুরী জাতীয় পার্টি থেকে গাইবান্ধা-৩ আসনে ১৯৮৬, ১৯৮৮, ১৯৯১, ১৯৯৬, ২০০১ ও ২০০৮ সালে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন।

পারিবারিক জীবনে তিনি ৩ ছেলে ও ২ মেয়ের বাবা।ফজলে রাব্বী চৌধুরীর জন্ম ১৯৩৪ সালে ১ অক্টোবর গাইবান্ধার পলাশবাড়ী উপজেলার তালুকজামিরা গ্রামে। ৬ ভাই ও ২ বোনের মধ্যে তিনি ছিলেন দ্বিতীয়। তার বাবা প্রয়াত আহসান উদ্দিন চৌধুরী ছিলেন একজন স্কুল শিক্ষক।

ফজলে রাব্বী ১৯৮৪ সালে জাতীয় পার্টিতে যোগ দিয়ে সাবেক রাষ্ট্রপতি হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের রাজনৈতিক উপদেষ্টার দায়িত্ব পালন করেন। তিনি ভূমিমন্ত্রী, ত্রাণ ও পুনর্বাসন মন্ত্রী এবং সংস্থাপন মন্ত্রী হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেন।

ফজলে রাব্বী ভূমিমন্ত্রী, ত্রাণ ও পুনর্বাসন মন্ত্রী ও সংস্থাপন মন্ত্রী হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেন। এছাড়া বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় ময়মনসিংহে প্রফেসর হিসেবে কর্মরত ছিলেন ফজলে রাব্বী।

Tag :
আপলোডকারীর তথ্য

প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিল থেকে চিকিৎসার চেক হস্তান্ত।

চলে গেলেন ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী ফজলে রাব্বী

আপডেট টাইম : ০৭:০৫:৩৮ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২০ ডিসেম্বর ২০১৮

আলোর জগত ডেস্ক :   গাইবান্ধা-৩ (সাদুল্লাপুর-পলাশবাড়ী) আসনের ঐক্যফ্রন্ট মনোনীত জাতীয় পার্টির (জাফর) প্রার্থী সাবেক মন্ত্রী ড. টিআইএম ফজলে রাব্বি চৌধুরী (৮৪) বৃহস্পতিবার ভোর রাত পৌনে তিনটার দিকে ঢাকাস্থ ইউনাইটেড হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন (ইন্নালিল্লাহি—রাজিউন)। ফজলে রাব্বী চৌধুরী দীর্ঘদিন ধরে ফুসফুসে সংক্রমণ ও উচ্চ রক্তচাপসহ বিভিন্ন রোগে ভুগছিলেন।

সাদুল্যাপুর উপজেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি শফিউল ইসলাম স্বপন জানান, ফজলে রাব্বী চৌধুরী দীর্ঘদিন ধরে হার্টের সমস্যায় ভুগছিলেন। শারীরিকভাবে অসুস্থ থাকায় ভোটের মাঠে আসতে পারছিলেন না তিনি। হঠাৎ করে ঢাকার নিজ বাসায় বুকে ব্যথা অনুভব করলে তাকে ইউনাইটেড হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।

ফজলে রাব্বী চৌধুরী জাতীয় পার্টি থেকে গাইবান্ধা-৩ আসনে ১৯৮৬, ১৯৮৮, ১৯৯১, ১৯৯৬, ২০০১ ও ২০০৮ সালে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন।

পারিবারিক জীবনে তিনি ৩ ছেলে ও ২ মেয়ের বাবা।ফজলে রাব্বী চৌধুরীর জন্ম ১৯৩৪ সালে ১ অক্টোবর গাইবান্ধার পলাশবাড়ী উপজেলার তালুকজামিরা গ্রামে। ৬ ভাই ও ২ বোনের মধ্যে তিনি ছিলেন দ্বিতীয়। তার বাবা প্রয়াত আহসান উদ্দিন চৌধুরী ছিলেন একজন স্কুল শিক্ষক।

ফজলে রাব্বী ১৯৮৪ সালে জাতীয় পার্টিতে যোগ দিয়ে সাবেক রাষ্ট্রপতি হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের রাজনৈতিক উপদেষ্টার দায়িত্ব পালন করেন। তিনি ভূমিমন্ত্রী, ত্রাণ ও পুনর্বাসন মন্ত্রী এবং সংস্থাপন মন্ত্রী হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেন।

ফজলে রাব্বী ভূমিমন্ত্রী, ত্রাণ ও পুনর্বাসন মন্ত্রী ও সংস্থাপন মন্ত্রী হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেন। এছাড়া বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় ময়মনসিংহে প্রফেসর হিসেবে কর্মরত ছিলেন ফজলে রাব্বী।