ঢাকা ০৪:২২ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

বেনাপোল এক্সপ্রেসে আগুনের পর হাসপাতালে ছেলেকে খুঁজছেন বাবা

  • অনলাইন ডেস্ক
  • আপডেট টাইম : ১২:৩৮:৩২ অপরাহ্ন, শনিবার, ৬ জানুয়ারী ২০২৪
  • ১৩ বার পড়া হয়েছে

রাজধানীর গোপীবাগে বেনাপোল এক্সপ্রেস ট্রেনে দুর্বৃত্তদের দেওয়া আগুনের ঘটনায় নিখোঁজ হওয়া ছেলেকে খুঁজতে হাসপাতালে হাসপাতালে ঘুরছেন তার বাবা আবদুল হক। শুক্রবার ফরিদপুর থেকে বেনাপোল এক্সপ্রেস ট্রেনে যাত্রা করেন ছেলে আবু তালহা।

শনিবার (০৬ জানুয়ারি) সকালে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের জরুরি বিভাগ মর্গে ছেলের খোঁজে আসেন আবদুল হক।

তিনি  বলেন, আমার ছেলে সৈয়দপুরের বাংলাদেশ আর্মি ইউনিভার্সিটি অব সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজিতে বিএসসি ইঞ্জিনিয়ারিং থার্ড ইয়ারে পড়ে। তার বয়স ২৪ বছর। আমার বাড়ি রাজবাড়ী জেলার কালুখালিতে। বর্তমানে ফরিদপুরে থাকি।

পেশায় ওষুধ কোম্পানিতে চাকরি করা আবদুল হক বলেন, আমার ছেলেকে ফরিদপুর স্টেশন থেকে ট্রেনে উঠিয়ে দিয়েছি। সে ঢাকা হয়ে সৈয়দপুরে যাবে তার বিশ্ববিদ্যালয়ে।

তিনি বলেন, রাতে ট্রেনে আগুন দেওয়ার পরপরই তার মোবাইল ফোন বন্ধ পাচ্ছি। তার বিশ্ববিদ্যালয়ে খোঁজ নিয়েছি, সেখানেও যায়নি। তার টিচাররাও তাকে খুঁজছে। আমি রাতেই ঢাকা আসি। ঢাকায় এসে প্রথমে যাই মুগদা মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে। সেখানে তাকে খুঁজে পাইনি। এরপর শেখ হাসিনা বার্ন ইনস্টিটিউটে এসেও আমার ছেলের খোঁজ পাইনি। তারপর আসি এখানে (ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের জরুরি বিভাগ মর্গ)। এখানে চারটি মরদেহ রয়েছে।

‘এখানে প্রথমে আমাকে মরদেহ দেখতে দেওয়া হয়নি, পরে দেখেছি। কিন্তু চিনতে পারছি না। একজন মানুষের উচ্চতা ৩/৪ হাত হলেও সবাই পুড়ে ১/২ হাত হয়ে গেছে’- বলেই কাঁদছিলেন আবদুল হক।

তিনি আরও বলেন, ‘জানি না আমার ছেলে বেঁচে আছে নাকি মারা গেছে। আমি আমার ছেলের সন্ধান চাই।’

রেলওয়ে পুলিশের এসআই সেতাফুর রহমান বলেন, এখানে ৪টি মরদেহ রয়েছে। এখন পর্যন্ত ৪টি পরিবার সন্ধান চেয়েছে। সন্ধান চাওয়ার জন্য আরও অনেকে আসছে।

আপলোডকারীর তথ্য

আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে ইন্টারন্যাশনাল রিলেশনস রিপোর্টার্স ফোরামের শ্রদ্ধা

বেনাপোল এক্সপ্রেসে আগুনের পর হাসপাতালে ছেলেকে খুঁজছেন বাবা

আপডেট টাইম : ১২:৩৮:৩২ অপরাহ্ন, শনিবার, ৬ জানুয়ারী ২০২৪

রাজধানীর গোপীবাগে বেনাপোল এক্সপ্রেস ট্রেনে দুর্বৃত্তদের দেওয়া আগুনের ঘটনায় নিখোঁজ হওয়া ছেলেকে খুঁজতে হাসপাতালে হাসপাতালে ঘুরছেন তার বাবা আবদুল হক। শুক্রবার ফরিদপুর থেকে বেনাপোল এক্সপ্রেস ট্রেনে যাত্রা করেন ছেলে আবু তালহা।

শনিবার (০৬ জানুয়ারি) সকালে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের জরুরি বিভাগ মর্গে ছেলের খোঁজে আসেন আবদুল হক।

তিনি  বলেন, আমার ছেলে সৈয়দপুরের বাংলাদেশ আর্মি ইউনিভার্সিটি অব সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজিতে বিএসসি ইঞ্জিনিয়ারিং থার্ড ইয়ারে পড়ে। তার বয়স ২৪ বছর। আমার বাড়ি রাজবাড়ী জেলার কালুখালিতে। বর্তমানে ফরিদপুরে থাকি।

পেশায় ওষুধ কোম্পানিতে চাকরি করা আবদুল হক বলেন, আমার ছেলেকে ফরিদপুর স্টেশন থেকে ট্রেনে উঠিয়ে দিয়েছি। সে ঢাকা হয়ে সৈয়দপুরে যাবে তার বিশ্ববিদ্যালয়ে।

তিনি বলেন, রাতে ট্রেনে আগুন দেওয়ার পরপরই তার মোবাইল ফোন বন্ধ পাচ্ছি। তার বিশ্ববিদ্যালয়ে খোঁজ নিয়েছি, সেখানেও যায়নি। তার টিচাররাও তাকে খুঁজছে। আমি রাতেই ঢাকা আসি। ঢাকায় এসে প্রথমে যাই মুগদা মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে। সেখানে তাকে খুঁজে পাইনি। এরপর শেখ হাসিনা বার্ন ইনস্টিটিউটে এসেও আমার ছেলের খোঁজ পাইনি। তারপর আসি এখানে (ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের জরুরি বিভাগ মর্গ)। এখানে চারটি মরদেহ রয়েছে।

‘এখানে প্রথমে আমাকে মরদেহ দেখতে দেওয়া হয়নি, পরে দেখেছি। কিন্তু চিনতে পারছি না। একজন মানুষের উচ্চতা ৩/৪ হাত হলেও সবাই পুড়ে ১/২ হাত হয়ে গেছে’- বলেই কাঁদছিলেন আবদুল হক।

তিনি আরও বলেন, ‘জানি না আমার ছেলে বেঁচে আছে নাকি মারা গেছে। আমি আমার ছেলের সন্ধান চাই।’

রেলওয়ে পুলিশের এসআই সেতাফুর রহমান বলেন, এখানে ৪টি মরদেহ রয়েছে। এখন পর্যন্ত ৪টি পরিবার সন্ধান চেয়েছে। সন্ধান চাওয়ার জন্য আরও অনেকে আসছে।