ঢাকা ০৪:২৪ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

রামপুরা সুদখোর আঃ মতিন সরকারের জুলুম অত্যাচার ও ক্ষমতার অপপ্রয়োগে দিশেহারা হয়ে ভুক্তভোগীদের আহাজারী”

  • সোহেল রানা:
  • আপডেট টাইম : ০৫:৫৮:১৫ অপরাহ্ন, শনিবার, ৩০ ডিসেম্বর ২০২৩
  • ১৮ বার পড়া হয়েছে

ভুক্তভোগীর আবেদনের প্রেক্ষিতে দৈনিক আলোর জগতের অনুসন্ধানী টিমের নেতৃত্বে থাকা প্রতিবেদক এর সাথে আশপাশের লোকজনের জানতে পারেন একান্ত সাক্ষাৎকার, অভিযুক্ত স্বনামধন্য সুদখোর মোঃ আঃ মতিন সরকার এর বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগের সত্যতা সুাষ্ট প্রমাণিত নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক পূবস জানা যায়, রামপুরা ওয়াপদা রোডে বসবাসরত স্থানীয় বাড়িওয়ালা মোঃ আঃ মতিন সরকার। যার সুনির্দিষ্ট কোন ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠান না থাকলেও দীর্ঘদিন বছর যাবৎ ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী। অভাবে ও পরিচিত জনদের কাছে সুদের উপর টাকা লগ্নি করে চক্রবৃদ্ধি সুদ আদায়ের এ জমজমাট ব্যবসা করে আসছেন। প্রকাশ থাকে যে, ভয়ানক সুচতুর অর্থ লোভ লুটেরা সুদখোর মোঃ আঃ মতিন সরকার অভিনব কায়দায় টাকা লোনকারীর নিকট থেকে স্বাক্ষরিত চেকের পাতায় এ টাকার পরিমান ও বাহকের নামের জায়গা ফাঁকা রেখে চেকটি নিজের সংরক্ষণে জমা রাখে। পরবর্তীতে চেকধারীর নিকট থেকে নির্ধারন করা মাসিক সুদের টাকা গ্রহন করতে থাকে এবং এক পর্যায়ে নিজের হাতে বাহকের নাম ও মোটা অংকের টাকা লিখে ব্যাংকে চেকটি জমা দিয়ে ডিজনার স্লিপ সংগ্রহ করে সুপরিকল্পিত পন্থায় আদালতে ভুক্তভোগীদের নামে মিথ্যা মামলা দায়ের করার র মাধ্যমে মধ্যবিত্ত পরিবারের সদস্যদের বিরুদ্ধে আদানেতে ভিত্তিহীন, বানোয়াট, উদ্দেশ্য প্রনেদিত মিথ্যা মামলার আসামী সার্জিসে হয়রানী করে যাচ্ছে যথাক্রমে মোঃ হামান স্বরুপ দায়েরকৃত মামলা দৈনিক আলোর জগতের প্রতিবেদক মামলার বিবাদী, আইনজীবি এবং স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিদের সহিত ঐকাধিকবার যোগাযোগ পূর্বক জানতে পারেন চেকের পাতায় নিজের হাতে ইচ্ছা মোতাবেক টাকার পরিমান লিখে লক্ষ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগে অভিযুক্ত হই- সুদখোর মোঃ আঃ মতিন সরকার, এহেন জঘন্য অপরাধের সত্যতা যাচাই বাছাই করে আদালতে দায়ের কৃত মিথ্যা মামলার হাত থেকে নির্মত মুক্তির শ্রেক্ষিতে মামলা খারিজ এর দাবী জানালেন অসহায় ভুক্তভোগীদের পরিবারের সদস্যগণেরা এবং একই সাথে পরিকল্পিতভাবে মানুষকে ঠকিয়ে লক্ষ লক্ষ টাকা আদায়ের গড়ফাদার সুদম্বোর মোঃ আঃ মতিন সরকারের বিরুদ্ধে আইনগত পদক্ষেপ ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবী জানালেন আমাদের প্রতিবেদকে।

আপলোডকারীর তথ্য

আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে ইন্টারন্যাশনাল রিলেশনস রিপোর্টার্স ফোরামের শ্রদ্ধা

রামপুরা সুদখোর আঃ মতিন সরকারের জুলুম অত্যাচার ও ক্ষমতার অপপ্রয়োগে দিশেহারা হয়ে ভুক্তভোগীদের আহাজারী”

আপডেট টাইম : ০৫:৫৮:১৫ অপরাহ্ন, শনিবার, ৩০ ডিসেম্বর ২০২৩

ভুক্তভোগীর আবেদনের প্রেক্ষিতে দৈনিক আলোর জগতের অনুসন্ধানী টিমের নেতৃত্বে থাকা প্রতিবেদক এর সাথে আশপাশের লোকজনের জানতে পারেন একান্ত সাক্ষাৎকার, অভিযুক্ত স্বনামধন্য সুদখোর মোঃ আঃ মতিন সরকার এর বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগের সত্যতা সুাষ্ট প্রমাণিত নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক পূবস জানা যায়, রামপুরা ওয়াপদা রোডে বসবাসরত স্থানীয় বাড়িওয়ালা মোঃ আঃ মতিন সরকার। যার সুনির্দিষ্ট কোন ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠান না থাকলেও দীর্ঘদিন বছর যাবৎ ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী। অভাবে ও পরিচিত জনদের কাছে সুদের উপর টাকা লগ্নি করে চক্রবৃদ্ধি সুদ আদায়ের এ জমজমাট ব্যবসা করে আসছেন। প্রকাশ থাকে যে, ভয়ানক সুচতুর অর্থ লোভ লুটেরা সুদখোর মোঃ আঃ মতিন সরকার অভিনব কায়দায় টাকা লোনকারীর নিকট থেকে স্বাক্ষরিত চেকের পাতায় এ টাকার পরিমান ও বাহকের নামের জায়গা ফাঁকা রেখে চেকটি নিজের সংরক্ষণে জমা রাখে। পরবর্তীতে চেকধারীর নিকট থেকে নির্ধারন করা মাসিক সুদের টাকা গ্রহন করতে থাকে এবং এক পর্যায়ে নিজের হাতে বাহকের নাম ও মোটা অংকের টাকা লিখে ব্যাংকে চেকটি জমা দিয়ে ডিজনার স্লিপ সংগ্রহ করে সুপরিকল্পিত পন্থায় আদালতে ভুক্তভোগীদের নামে মিথ্যা মামলা দায়ের করার র মাধ্যমে মধ্যবিত্ত পরিবারের সদস্যদের বিরুদ্ধে আদানেতে ভিত্তিহীন, বানোয়াট, উদ্দেশ্য প্রনেদিত মিথ্যা মামলার আসামী সার্জিসে হয়রানী করে যাচ্ছে যথাক্রমে মোঃ হামান স্বরুপ দায়েরকৃত মামলা দৈনিক আলোর জগতের প্রতিবেদক মামলার বিবাদী, আইনজীবি এবং স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিদের সহিত ঐকাধিকবার যোগাযোগ পূর্বক জানতে পারেন চেকের পাতায় নিজের হাতে ইচ্ছা মোতাবেক টাকার পরিমান লিখে লক্ষ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগে অভিযুক্ত হই- সুদখোর মোঃ আঃ মতিন সরকার, এহেন জঘন্য অপরাধের সত্যতা যাচাই বাছাই করে আদালতে দায়ের কৃত মিথ্যা মামলার হাত থেকে নির্মত মুক্তির শ্রেক্ষিতে মামলা খারিজ এর দাবী জানালেন অসহায় ভুক্তভোগীদের পরিবারের সদস্যগণেরা এবং একই সাথে পরিকল্পিতভাবে মানুষকে ঠকিয়ে লক্ষ লক্ষ টাকা আদায়ের গড়ফাদার সুদম্বোর মোঃ আঃ মতিন সরকারের বিরুদ্ধে আইনগত পদক্ষেপ ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবী জানালেন আমাদের প্রতিবেদকে।