ঢাকা ০৩:৫২ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ১২ জুন ২০২৪
সংবাদ শিরোনাম :

গোপালগঞ্জে বোরো উফশী ধানে প্রণোদনা পাচ্ছেন ৩০ হাজার কৃষক

গোপালগঞ্জে বোরো উফশী ধান চাষাবাদে প্রণোদনার বীজ সার পাচ্ছেন ৩০ হাজার কৃষক। ২০২৩-২৪ অর্থ বছরে প্রণোদনা কর্মসূচির আওতায় রবি মৌসুমে জেলার ৫ উপজেলার ১ লাখ ৫০হাজার কেজি বোরো উফশী ধান বীজ, ৩ লাখ কেজি ডিএমপি সার ও ৩ লাখ কেজি এমওপি সার ৩০ হাজার কৃষকের মাঝে বিনামূল্যে বিতরন করা হবে।

এ কর্মসূচির আওতায় ১ জন কৃষক (৩৩ শতাংশ) ১ বিঘা জমি চাষাবাদের জন্য ৫ কেজি করে বোরো ধানের উফশী ধান বীজ, ১০ কেজি করে ডিএমপি ও এমওপি সার পাবেন। কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের গোপালগঞ্জ খামারবাড়ির উপ পরিচালক আঃ কাদের সরদার এসব তথ্য জানিয়েছে। তিনি আরো বলেন গোপালগঞ্জ সদর উপজেলার ৬ হাজার কৃষকের মধ্যে বিতরণের জন্য ৩০ হাজার কেজি বোরো উফশী ধান বীজ, ৬০ হাজার কেজি ডিএপিও ৬০ হাজার কেজি এমওপি সার বরাদ্দ পাওয়া গেছে। মুকসুদপুরে ৫ হাজার ৩০০ জন কৃষকের জন্য ২৬ হাজার ৫০০ কেজি বোরো উফশী ধান বীজ, ৫৩ হাজার কেজি ডিএমপি ও ৫৩ হাজার কেজি এমওপি সার বরাদ্দ এসেছে। কাশিয়ানী উপজেলায় ৫ হাজার ২০০ জন কৃষকের মধ্যে বিতরণের জন্য ২৬ হাজার কেজি বোরো উফশী ধান বীজ, ৫২ হাজার কেজি ডিএপি ও ৫২ হাজার কেজি এমওপি সার বরাদ্দ করেছে সরকার। কোটালীপাড়া উপজেলায় ৭ হাজার ৫০০ কৃষকের মধ্যে বিতরণের জন্য ৩৭ হাজার ৫০০ কেজি বোরো উফশী ধান বীজ, ৭৫ হাজার কেজি ডিএমপি ও ৭৫ হাজার কেজি এমওপি সার বরাদ্দ পাওয়া গেছে। টুঙ্গিপাড়া উপজেলার ৬ হাজার কৃষকের জন্য ৩০ হাজার কেজি বোরো উফশী ধান বীজ, ৬০ হাজার কেজি ডিএমপি ও ৬০ হাজার কেজি এমওপি সার বরাদ্দ মিলেছে। বোরো বীজতলা তৈরীর জন্য দ্রুত এসব ধান বীজ বিতরণ সম্পন্ন করা হচ্ছে বলেও জানান ওই কর্মকর্তা। কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের গোপালগঞ্জ খামারবাড়ির অতিরিক্ত উপ-পরিচালক সঞ্জয় কুন্ডু বলেন, ১ লাখ ৫০ হাজার কেজি বোরো উফশী ধান বীজ দিয়ে ৩০ হাজার প্রান্তিক কৃষক ৩০ হাজার বিঘা জমিতে বোরো উফশী ধানের চাষাবাদ করবেন। এতে জেলায় বোরো উফশী ধানের চাষাবাদ বৃদ্ধি পাবে। সেই সাথে জেলায় বাড়বে বোরো ধানের উৎপাদন। কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের গোপালগঞ্জ সদর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মাফরোজা আক্তার বলেন, গোপালগঞ্জ সদর উপজেলায় ৬ হাজার কৃষকের জন্য ৩০ হাজার কেজি বোরো উফশী ধান বীজ, ৬০ হাজার কেজি ডিএমপি ও ৬০ হাজার কেজি এমওপি সার বিতরন করা হচ্ছে। এ ধান বীজ বিতরনের জন্য আমরা সব প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছি। গোপালগঞ্জ সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মহসিন উদ্দীন ৭ দিন আগে বীজ বিতরন কর্মসূচির উদ্বোধন করেছেন। সদর উপজেলায় বোরো ধান বীজ ও সার বিতরন অব্যাহত রয়েছে। দ্রুত আমরা এটি সম্পন্ন করব।

আপলোডকারীর তথ্য

জনপ্রিয় সংবাদ

প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিল থেকে চিকিৎসার চেক হস্তান্ত, সাবেক এম পি নুরুল আমিন রুহুল

গোপালগঞ্জে বোরো উফশী ধানে প্রণোদনা পাচ্ছেন ৩০ হাজার কৃষক

আপডেট টাইম : ১২:২৩:২৮ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৩ নভেম্বর ২০২৩

গোপালগঞ্জে বোরো উফশী ধান চাষাবাদে প্রণোদনার বীজ সার পাচ্ছেন ৩০ হাজার কৃষক। ২০২৩-২৪ অর্থ বছরে প্রণোদনা কর্মসূচির আওতায় রবি মৌসুমে জেলার ৫ উপজেলার ১ লাখ ৫০হাজার কেজি বোরো উফশী ধান বীজ, ৩ লাখ কেজি ডিএমপি সার ও ৩ লাখ কেজি এমওপি সার ৩০ হাজার কৃষকের মাঝে বিনামূল্যে বিতরন করা হবে।

এ কর্মসূচির আওতায় ১ জন কৃষক (৩৩ শতাংশ) ১ বিঘা জমি চাষাবাদের জন্য ৫ কেজি করে বোরো ধানের উফশী ধান বীজ, ১০ কেজি করে ডিএমপি ও এমওপি সার পাবেন। কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের গোপালগঞ্জ খামারবাড়ির উপ পরিচালক আঃ কাদের সরদার এসব তথ্য জানিয়েছে। তিনি আরো বলেন গোপালগঞ্জ সদর উপজেলার ৬ হাজার কৃষকের মধ্যে বিতরণের জন্য ৩০ হাজার কেজি বোরো উফশী ধান বীজ, ৬০ হাজার কেজি ডিএপিও ৬০ হাজার কেজি এমওপি সার বরাদ্দ পাওয়া গেছে। মুকসুদপুরে ৫ হাজার ৩০০ জন কৃষকের জন্য ২৬ হাজার ৫০০ কেজি বোরো উফশী ধান বীজ, ৫৩ হাজার কেজি ডিএমপি ও ৫৩ হাজার কেজি এমওপি সার বরাদ্দ এসেছে। কাশিয়ানী উপজেলায় ৫ হাজার ২০০ জন কৃষকের মধ্যে বিতরণের জন্য ২৬ হাজার কেজি বোরো উফশী ধান বীজ, ৫২ হাজার কেজি ডিএপি ও ৫২ হাজার কেজি এমওপি সার বরাদ্দ করেছে সরকার। কোটালীপাড়া উপজেলায় ৭ হাজার ৫০০ কৃষকের মধ্যে বিতরণের জন্য ৩৭ হাজার ৫০০ কেজি বোরো উফশী ধান বীজ, ৭৫ হাজার কেজি ডিএমপি ও ৭৫ হাজার কেজি এমওপি সার বরাদ্দ পাওয়া গেছে। টুঙ্গিপাড়া উপজেলার ৬ হাজার কৃষকের জন্য ৩০ হাজার কেজি বোরো উফশী ধান বীজ, ৬০ হাজার কেজি ডিএমপি ও ৬০ হাজার কেজি এমওপি সার বরাদ্দ মিলেছে। বোরো বীজতলা তৈরীর জন্য দ্রুত এসব ধান বীজ বিতরণ সম্পন্ন করা হচ্ছে বলেও জানান ওই কর্মকর্তা। কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের গোপালগঞ্জ খামারবাড়ির অতিরিক্ত উপ-পরিচালক সঞ্জয় কুন্ডু বলেন, ১ লাখ ৫০ হাজার কেজি বোরো উফশী ধান বীজ দিয়ে ৩০ হাজার প্রান্তিক কৃষক ৩০ হাজার বিঘা জমিতে বোরো উফশী ধানের চাষাবাদ করবেন। এতে জেলায় বোরো উফশী ধানের চাষাবাদ বৃদ্ধি পাবে। সেই সাথে জেলায় বাড়বে বোরো ধানের উৎপাদন। কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের গোপালগঞ্জ সদর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মাফরোজা আক্তার বলেন, গোপালগঞ্জ সদর উপজেলায় ৬ হাজার কৃষকের জন্য ৩০ হাজার কেজি বোরো উফশী ধান বীজ, ৬০ হাজার কেজি ডিএমপি ও ৬০ হাজার কেজি এমওপি সার বিতরন করা হচ্ছে। এ ধান বীজ বিতরনের জন্য আমরা সব প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছি। গোপালগঞ্জ সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মহসিন উদ্দীন ৭ দিন আগে বীজ বিতরন কর্মসূচির উদ্বোধন করেছেন। সদর উপজেলায় বোরো ধান বীজ ও সার বিতরন অব্যাহত রয়েছে। দ্রুত আমরা এটি সম্পন্ন করব।