ঢাকা ০৯:৩৬ অপরাহ্ন, বুধবার, ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

মিসরের প্রেসিডেন্টের সঙ্গে একমত মোদি

  • অনলাইন ডেস্ক:
  • আপডেট টাইম : ০৮:৩২:২০ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৯ অক্টোবর ২০২৩
  • ৫৫ বার পড়া হয়েছে

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি এবং মিসরের রাষ্ট্রপতি আবদেল ফাত্তাহ আল-সিসি পশ্চিম এশিয়ার ক্রমবর্ধমান নিরাপত্তা এবং মানবিক পরিস্থিতি নিয়ে শনিবার আলোচনা করেছেন। উভয় নেতাই ইসরায়েল-হামাস যুদ্ধের কারণে এই এলাকায় সন্ত্রাসবাদ, সহিংসতা এবং বেসামরিক হতাহতের বৃদ্ধি নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন।

প্রধানমন্ত্রী মোদি এবং রাষ্ট্রপতি আল-সিসি দ্রুত শান্তি ও স্থিতিশীলতা পুনরুদ্ধার করার এবং সংঘাতে ক্ষতিগ্রস্তদের মানবিক সহায়তা প্রদানের প্রয়োজনীয়তার বিষয়ে একমত হয়েছেন।

এক্স হ্যান্ডেলারে নরেন্দ্র মোদি লিখেছেন, ‘গতকাল (শনিবার), রাষ্ট্রপতি সিসির সঙ্গে কথা হয়েছে। তিনি পশ্চিম এশিয়ার অবনতিশীল নিরাপত্তা এবং মানবিক পরিস্থিতির বিষয়ে মতামত বিনিময় করেছেন। আমরা সন্ত্রাসবাদ, সহিংসতা এবং বেসামরিক মানুষের জীবনহানির বিষয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছি। আমরা শান্তি ও স্থিতিশীলতা দ্রুত পুনরুদ্ধার এবং মানবিক সহায়তা প্রদানের প্রয়োজনীয়তার বিষয়ে একমত।’

মিসরীয় প্রেসিডেন্সির একজন মুখপাত্র বলেছেন, দুই নেতা ‘গাজা উপত্যকায় ইসরায়েলের সামরিক অভিযান’-এর সর্বশেষ অগ্রগতি সম্পর্কেও মতবিনিময় করেছেন।

ফেসবুক পোস্টে তিনি আরও বলেছেন, ‘প্রেসিডেন্ট আবদেল ফাত্তাহ এল-সিসি ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির কাছ থেকে একটি ফোন কল পেয়েছেন, যেখানে গাজা উপত্যকায় ইসরায়েলি সামরিক অভিযানের সর্বশেষ অগ্রগতি এবং বর্তমান অব্যাহত রাখার বিপদ সম্পর্কে দুই নেতার মধ্যে মতামত বিনিময় করা হয়েছিল। ক্রমবর্ধমান বেসামরিক নাগরিকদের জীবনে এর মারাত্মক প্রভাবের কারণে বা এটি নিরাপত্তার জন্য হুমকির কারণে এই আলোচনা হয়েছে।’

৭ অক্টোবর হামাসের হামলায় ইসরায়েলে কমপক্ষে ১ হাজার ৪০০ জন নিহত হয়েছিল এবং ইসরায়েলের হামলায় গাজায় ৮ হাজারের বেশি মানুষ নিহত হয়েছে যাদের অর্ধেকই শিশু।

ভারত শুক্রবার জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের গাজায় যুদ্ধবিরতির প্রস্তাবে ভোট দেওয়া থেকে বিরত ছিল। দেশটির দাবি, প্রস্তাবে হামাসের উল্লেখ ছিলনা এবং জাতিসংঘকে সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে একটি স্পষ্ট বার্তা পাঠাতে হবে।

জাতিসংঘে ভারতের উপ-স্থায়ী প্রতিনিধি যোজনা প্যাটেল বলেছেন, ‘আমরা আশা করি যে এই সমাবেশের আলোচনা সন্ত্রাস ও সহিংসতার বিরুদ্ধে একটি স্পষ্ট বার্তা পাঠাবে এবং আমাদের মুখোমুখি হওয়া মানবিক সংকট মোকাবেলায় কূটনীতি ও সংলাপের সম্ভাবনা প্রসারিত করবে।’

আপলোডকারীর তথ্য

আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে ইন্টারন্যাশনাল রিলেশনস রিপোর্টার্স ফোরামের শ্রদ্ধা

মিসরের প্রেসিডেন্টের সঙ্গে একমত মোদি

আপডেট টাইম : ০৮:৩২:২০ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৯ অক্টোবর ২০২৩

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি এবং মিসরের রাষ্ট্রপতি আবদেল ফাত্তাহ আল-সিসি পশ্চিম এশিয়ার ক্রমবর্ধমান নিরাপত্তা এবং মানবিক পরিস্থিতি নিয়ে শনিবার আলোচনা করেছেন। উভয় নেতাই ইসরায়েল-হামাস যুদ্ধের কারণে এই এলাকায় সন্ত্রাসবাদ, সহিংসতা এবং বেসামরিক হতাহতের বৃদ্ধি নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন।

প্রধানমন্ত্রী মোদি এবং রাষ্ট্রপতি আল-সিসি দ্রুত শান্তি ও স্থিতিশীলতা পুনরুদ্ধার করার এবং সংঘাতে ক্ষতিগ্রস্তদের মানবিক সহায়তা প্রদানের প্রয়োজনীয়তার বিষয়ে একমত হয়েছেন।

এক্স হ্যান্ডেলারে নরেন্দ্র মোদি লিখেছেন, ‘গতকাল (শনিবার), রাষ্ট্রপতি সিসির সঙ্গে কথা হয়েছে। তিনি পশ্চিম এশিয়ার অবনতিশীল নিরাপত্তা এবং মানবিক পরিস্থিতির বিষয়ে মতামত বিনিময় করেছেন। আমরা সন্ত্রাসবাদ, সহিংসতা এবং বেসামরিক মানুষের জীবনহানির বিষয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছি। আমরা শান্তি ও স্থিতিশীলতা দ্রুত পুনরুদ্ধার এবং মানবিক সহায়তা প্রদানের প্রয়োজনীয়তার বিষয়ে একমত।’

মিসরীয় প্রেসিডেন্সির একজন মুখপাত্র বলেছেন, দুই নেতা ‘গাজা উপত্যকায় ইসরায়েলের সামরিক অভিযান’-এর সর্বশেষ অগ্রগতি সম্পর্কেও মতবিনিময় করেছেন।

ফেসবুক পোস্টে তিনি আরও বলেছেন, ‘প্রেসিডেন্ট আবদেল ফাত্তাহ এল-সিসি ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির কাছ থেকে একটি ফোন কল পেয়েছেন, যেখানে গাজা উপত্যকায় ইসরায়েলি সামরিক অভিযানের সর্বশেষ অগ্রগতি এবং বর্তমান অব্যাহত রাখার বিপদ সম্পর্কে দুই নেতার মধ্যে মতামত বিনিময় করা হয়েছিল। ক্রমবর্ধমান বেসামরিক নাগরিকদের জীবনে এর মারাত্মক প্রভাবের কারণে বা এটি নিরাপত্তার জন্য হুমকির কারণে এই আলোচনা হয়েছে।’

৭ অক্টোবর হামাসের হামলায় ইসরায়েলে কমপক্ষে ১ হাজার ৪০০ জন নিহত হয়েছিল এবং ইসরায়েলের হামলায় গাজায় ৮ হাজারের বেশি মানুষ নিহত হয়েছে যাদের অর্ধেকই শিশু।

ভারত শুক্রবার জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের গাজায় যুদ্ধবিরতির প্রস্তাবে ভোট দেওয়া থেকে বিরত ছিল। দেশটির দাবি, প্রস্তাবে হামাসের উল্লেখ ছিলনা এবং জাতিসংঘকে সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে একটি স্পষ্ট বার্তা পাঠাতে হবে।

জাতিসংঘে ভারতের উপ-স্থায়ী প্রতিনিধি যোজনা প্যাটেল বলেছেন, ‘আমরা আশা করি যে এই সমাবেশের আলোচনা সন্ত্রাস ও সহিংসতার বিরুদ্ধে একটি স্পষ্ট বার্তা পাঠাবে এবং আমাদের মুখোমুখি হওয়া মানবিক সংকট মোকাবেলায় কূটনীতি ও সংলাপের সম্ভাবনা প্রসারিত করবে।’