ঢাকা ১১:৫৯ অপরাহ্ন, সোমবার, ২২ জুলাই ২০২৪
সংবাদ শিরোনাম :

শ্রীলঙ্কায় ক্ষমতা লড়াই: রাজাপাকসেকে সমর্থন দেবে না তামিল জোট

আন্তর্জাতিক ডেস্ক :  শ্রীলঙ্কার সংখ্যালঘু তামিল জনগোষ্ঠীর রাজনৈতিক জোট জানিয়েছে, তারা রাজাপাকসের বিরুদ্ধে অনাস্থা প্রস্তাব আনবে। শনিবার এক বিবৃতিতে এই অবস্থান জানায় তামিল ন্যাশনাল অ্যালায়েন্স (টিএনএ)। গেল সপ্তাহে প্রেসিডেন্ট কর্তৃক রাজাপাকসে প্রধানমন্ত্রী নিয়োগের সিদ্ধান্তটিকে অসাংবিধানিক ও অবৈধ বলে উল্লেখ করেছে টিএনএ। বিবৃতিতে তারা জানায়, রাজাপাকসেকে দায়িত্ব থেকে সরাতে বরখাস্তকৃত প্রধানমন্ত্রী রনিল বিক্রমাসিংহকে সমর্থন জানাবে তারা। খবর আল জাজিরা।

শ্রীলঙ্কার পার্লামেন্টে ১৫ জন আইনপ্রণেতা রয়েছে টিএনএ’র। মোট আসন ২২৫। কোনও প্রধানমন্ত্রীকে ক্ষমতা থেকে সরাতে পার্লামেন্ট সদস্যদের ১১৩টি ভোট প্রয়োজন। এরমধ্যে বিক্রমাসিংহে সমর্থন পাচ্ছেন ১০০ জন সদস্যের। ফলে রাজাপাকসের বিরুদ্ধে অনাস্থা ভোটে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে পারে সংখ্যালঘুদের এই জোট।

গত ২৬ অক্টোবর দেশটির প্রেসিডেন্ট মৈত্রিপালা সিরিসেনা বিক্রমাসিংহকে প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব হতে বরখাস্ত করেন এবং সাবেক প্রেসিডেন্ট রাজপাকসেকে নতুন প্রধানমন্ত্রী হিসেবে নিয়োগ দেন।

তবে বিক্রমাসিংহে নিজেকে এখনও প্রধানমন্ত্রী দাবি করছেন। তিনি পার্লামেন্টে ভোট দাবি করেছেন। শুক্রবার জাতিসংঘও এই দাবিকে সমর্থন করেছে।

Tag :
আপলোডকারীর তথ্য

জনপ্রিয় সংবাদ

প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিল থেকে চিকিৎসার চেক হস্তান্ত, সাবেক এম পি নুরুল আমিন রুহুল

শ্রীলঙ্কায় ক্ষমতা লড়াই: রাজাপাকসেকে সমর্থন দেবে না তামিল জোট

আপডেট টাইম : ০৪:৩৫:১৪ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ৪ নভেম্বর ২০১৮

আন্তর্জাতিক ডেস্ক :  শ্রীলঙ্কার সংখ্যালঘু তামিল জনগোষ্ঠীর রাজনৈতিক জোট জানিয়েছে, তারা রাজাপাকসের বিরুদ্ধে অনাস্থা প্রস্তাব আনবে। শনিবার এক বিবৃতিতে এই অবস্থান জানায় তামিল ন্যাশনাল অ্যালায়েন্স (টিএনএ)। গেল সপ্তাহে প্রেসিডেন্ট কর্তৃক রাজাপাকসে প্রধানমন্ত্রী নিয়োগের সিদ্ধান্তটিকে অসাংবিধানিক ও অবৈধ বলে উল্লেখ করেছে টিএনএ। বিবৃতিতে তারা জানায়, রাজাপাকসেকে দায়িত্ব থেকে সরাতে বরখাস্তকৃত প্রধানমন্ত্রী রনিল বিক্রমাসিংহকে সমর্থন জানাবে তারা। খবর আল জাজিরা।

শ্রীলঙ্কার পার্লামেন্টে ১৫ জন আইনপ্রণেতা রয়েছে টিএনএ’র। মোট আসন ২২৫। কোনও প্রধানমন্ত্রীকে ক্ষমতা থেকে সরাতে পার্লামেন্ট সদস্যদের ১১৩টি ভোট প্রয়োজন। এরমধ্যে বিক্রমাসিংহে সমর্থন পাচ্ছেন ১০০ জন সদস্যের। ফলে রাজাপাকসের বিরুদ্ধে অনাস্থা ভোটে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে পারে সংখ্যালঘুদের এই জোট।

গত ২৬ অক্টোবর দেশটির প্রেসিডেন্ট মৈত্রিপালা সিরিসেনা বিক্রমাসিংহকে প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব হতে বরখাস্ত করেন এবং সাবেক প্রেসিডেন্ট রাজপাকসেকে নতুন প্রধানমন্ত্রী হিসেবে নিয়োগ দেন।

তবে বিক্রমাসিংহে নিজেকে এখনও প্রধানমন্ত্রী দাবি করছেন। তিনি পার্লামেন্টে ভোট দাবি করেছেন। শুক্রবার জাতিসংঘও এই দাবিকে সমর্থন করেছে।